কারান জোহর। দ্যা গ্রেইট ডিরেক্টর অফ ইন্ডিয়ান সিনেমা! এই লোকটা একটা সমকামী এবং বলিউডে সমকামীতার এনসাইন-বেয়ারার। ইন্টারন্যাশনাল টেলিভিশনের পর্দায় এই কথা সে অকপটে স্বীকার করে। এছাড়া, সে স্টারকিড ছাড়া অন্য কাউকে তার মুভিতে খুব কম নেয়। এজন্য তাকে স্বজনপ্রীতির জন্য অনেক সমালোচনা সহ্য করতে হয়। তবে যথেষ্ট ব্যতিক্রম ঘটেছে সিদ্ধার্থ মলহোত্রার ক্ষেত্রে। সিদ্ধার্থ মলহোত্রা কোনো স্টারকিড নয়, একজন আউটসাইডার। কিন্তু, তাকে সিনেমায় নেবার করার কারণ হল সে কারান জোহরের ‘বয়ফ্রেন্ড’ এবং সহকারী ছিল যা একটি ওপেন সিক্রেট! তাহলে বুঝুন, যুব সমাজের যারা এদের মুভি দেখে তারা কেনো সমকামী সাপোর্টার হয়! শামির মোন্তাজিদ আর সাকিবরা কি এমনি এমনিই সমকামীদের সাপোর্ট করে জাতে উঠতে চায়?
.
এছাড়া, বেশ কয়েকদিন আগে ‘পদ্মাবতী’ নামে একটি মুভি রিলিজ হয়েছে, মুসলিম শাসক আলাউদ্দিন খিলজি ও কাল্পনিক চরিত্র পদ্মাবতীকে নিয়ে। ছবিতে সুলতান এবং তাঁর সেনাপতি মালিক কাফুরকে সমকামী দেখানো হয়েছে। মূলত সুলতানকে দেখানো হয়েছে মাদকাসক্ত এবং উভকামী যৌনতাতাড়িত জালিম, অত্যাচারী রূপে। অর্থাৎ মানবীয় মন্দ গুণের এমন কোনো কিছুই বাদ রাখা হয় নি যাতে সুলতানকে ঘৃণিতভাবে উপস্থাপনের বাকি রাখে। অথচ সুলতান নিজে এবং তাঁর সেনাপতি ছিলেন সত্যিকার মুসলিম। মুসলিমদের বিরূদ্ধে বিষোদ্গার করাই ছিল এই মুভির লক্ষ্য।
.
এছাড়া বলিউডে এখন পর্যন্ত এমন কিছু মুভি রিলিজ হয়েছে যেগুলো Homosexuality তথা সমকামীতাকে সাপোর্ট করার জন্য বানানো হয়েছে! সঙ্গত কারণেই আমি এগুলোর নাম বলছি না। তবে যারা বলি-মুভি দেখে বা দেখেছে তারা সহজেই বিষয়গুলো বুঝে যাবে।
.
রিসেন্টলি সাহিল চোধুরী নামে এক ভারতীয় ইউটিবার, যে ২০১৪ সাল থেকে মডেলিং করছিল এবং ২০১৮ এর দিকে সে মডেলিং ছেড়ে দেয়; সে বলছে, “আমি প্রায় প্রতিটি প্রোডাকশনের জন্য অডিশন দিয়েছি। বিভিন্ন ওয়েব সিরিজের জন্যও অডিশন দিয়েছি। কিন্তু আমি এখানে অনেক খারাপ জিনিস দেখেছি। মডেলিং করা অবস্থায়ই আমি সেখানকার যে পরিস্থিতি দেখেছি ফলে (ফিল্মে আসার) আগেই আমার ইচ্ছা সব উবে যায়।“
.
সে আরও বলে, “এখানকার সকলেই ড্রাগ এডিক্টেড। (মেয়ে) মডেলদেরকে তারা যা-তা করার জন্য বলে! শুধু আসো এবং সেক্স করো!” সবচে’ গুরুত্বপূর্ণ কথা যা সে বলেছে তা হল, “আমি পিতা-মাতাদেরকে বলব আপনাদের সন্তানদেরকে দয়া করে মডেলিং-এ পাঠাবেন না। মডেলিং-এ কোনো ক্যারিয়ার নেই। কারণ, এখানে যত ডিজাইনার আছে সবগুলোই সমকামী। সব সুন্দর ছেলেদের সাথে তারা সমকাম করতে চায়! আমি চাই আপনারা আপনাদের সন্তানদেরকে ফোন দিয়ে খবর নিন যে, তারা ভালো আছে কিনা। কেননা এখানে সেক্সুয়াল হ্যারাসম্যান্ট খুবই সাধারণ বিষয়। এজন্যই ইন্দার কুমার, কুশাল পাঞ্জাবী এবং আনান্দী’রাসহ অনেক মডেলরা (মডেলিং অবস্থায়ই তথা ফিল্মে আসার আগেই) আত্মহত্যা করে ফেলে।“
.
বেশ কয়েকদিন আগে ভারতের মিডিয়া একটা বিষয় নিয়ে খুব হালচাল শুরু হয় সেটি হচ্ছে ‘me too movement’ যেখানে মডেল কিংবা যে বা যারাই বলিউডে বিভিন্ন স্টারদের দ্বারা হ্যারাসম্যান্টের স্বীকার হয়েছে তারা অকপটে মিডিয়ার সামনে ওইসব লোকদের নাম বলে দিয়েছে ও হ্যারাসম্যান্টের ঘটনা উল্লেখ করে দিয়েছে। সেখানে নাম উঠে এসেছে বড় বড় তারকাদের। যেমনঃ শাহরুখ খান, সাজিদ খান, মিউজিক কোম্পানি ‘টি-সিরিজ’ এর মালিক ভুশন কুমারের নাম পর্যন্ত!
.
তো আমি শুধু একটি ঘটনা উল্লেখ করে শেষ করছি। তা হল, মারিনা কুয়ার নামের এক সংগীত শিল্পীকে কাজ দেওয়ার বাহানা করে সাজিদ খান (মুভি ডিরেক্টর) ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। একইভাবে চেষ্টা করে এই ভুশন কুমার এবং এই কথা যখন মারিনা কুয়ার পাবলিকলি me too movement-এ বলে তখন সাজিদ আর ভুশনের দেখে যাওয়া আর অপমানিত হওয়া ছাড়া আর করার কিছু ছিল না! কারণ তা ছিল সত্য ঘটনা। এরকম হাজারো অভিনেতা-অভিনেত্রী, গায়ক-গায়িকাদের এরা শোষণ করে কাজ দেওয়ার নামে এবং এই সিন কেবল বলিউড নয় বরং বাংলাদেশেও হয়ে থাকে। তবে আপনারা এই ঘটনা মাথায় রাখবেন, কারণ, সামনে আমরা ছোট্ট করে এটা নিয়ে আলোচনা করব।
.
যাইহোক, নেপোটিজম নিয়ে যখন বলি-পাড়ায় ঝড় উঠেছে, তখন এদের মিউজিক ইন্ড্রাস্টির লোকেরাও চুপ বসে নেই। হঠাৎ করে TOI এর একটি আর্টিকেলে দেখি ‘মাইকে আযান নিয়ে কটাক্ষকারী’ সংগীত শিল্পী সনু নিগম তাদের বলিউডের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির নেপোটিজমের বিরুদ্ধে বলছে। বেচারা! অনেক বছর যাবত সে গান পায় না।
.
সে বলছে, “আজ একজন অভিনেতা মারা গিয়েছে। কাল হয়ত কোনো মিউজিক কম্পোজার, গায়ক বা লিরিসিস্টের ব্যপারেও আপনারা এমন শুনতে পারেন। কেননা আমাদের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে মুভি থেকেও বড় মাফিয়ারা আছে।“ …সে আরো বলে, “মাত্র ২ জন লোক এই মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি চালায়। তাদের হাতেই সবকিছু!” … সে আরো বলে, “আমি নতুন মিউজিশিয়ানদের চোখে , কন্ঠে ফ্রাস্ট্রেশন দেখেছি।“
.
তো আসুন, মারিনা কুয়ারের ছোট্ট গল্প শেষ করি। উপরের কথাগুলো বলায় সনু নিগমের উপর ভড়কে যায় ভুশন কুমার। ফলে সনু নিগমের বিরুদ্ধে সে অন্যদের ভড়কে দেয়। কাউন্টারপার্ট হিসেবে, সনু নিগম বলছে, “মারিনা কুয়ার কেন তোর (ভুশন) বিরুদ্ধে কথা বলা বন্ধ করে দিল আমি জানি না তবে মারিনা কুয়ার রিলেটেড একটি ভিডিও এখনো আমার কাছে পড়ে আছে। আমি এই ভিডিও আমার ইউটিউব চ্যানেলে ছেড়ে দিব।“
.
এই হচ্ছে এদের বাস্তবতা। শেয়ালের ধূর্ততা নিয়ে এরা Women empowerment এর কথা বলে তাদের ভোগ করার জন্য। আজ এরা একটা আরেকটার সাথে কুকুরের মত কামড়াকামড়ি করছে। কিন্তু আমরা এসব দেখেও না দেখার ভান করছি!
.
এভাবেই, এই বলিউড মানুষের মাঝে ইসলামফোবিয়া, পর্নোগ্রাফি আর সমকামীতাকে ছড়িয়ে দিচ্ছে। কারণ যারা সার্ভাইভ করে বলি-পাড়ায় ঢুকছে তারাও পরবর্তীতে অন্যদের সাথে এরূপ আচরণ করছে। এর ফলে পুরো বলিউড জোড়ে বিকৃত চিন্তার সেক্সিস্টদের উদ্ভব হচ্ছে এবং বলিউডে এমন কন্টেন্ট ছড়িয়ে দিচ্ছে যা মানুষকে বিকৃতিকে সাধারন এবং সহজাত বলে মেনে নিতে বাধ্য করছে ও অবচেতন মনে এই বিষয়গুলোকে মানুষ বরণ করে নিচ্ছে।
.
চলবে ইনশা আল্লাহ…
.
পড়ুন প্রথম পর্ব- https://www.lostmodesty.com/darkbolly1/
.
লেখক: Mashud Ur Rahman
.
#SaveFoundation_প্রবন্ধলিখন_প্রতিযোগিতা_২০২০

শেয়ার করুনঃ